ধর্ম

কৃষ্ণনগরের জগদ্ধাত্রী পূজা

জগদ্ধাত্রী পূজা বলতেই চন্দননগরের কথা মনে পড়লেও কৃষ্ণনগরের জগদ্ধাত্রী পূজা অন্য মাহাত্ম্য বহন করে। বলা হয়ে থাকে কৃষ্ণনগরের মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্রই বাংলার নদীয়ায় প্রথম জগদ্ধাত্রী পূজা চালু করেন।

প্রচলিত কাহিনি অনুসারে নবাব আলিবর্দির রাজত্বকালে তিনি রাজার কাছে বারো লক্ষ টাকা নজরানা দাবি করেন। সেই নজরানা দিতে না পারায় তিনি রাজাকে বন্দী করে মুর্শিদাবাদে (মতান্তরে মুঙ্গেরে) নিয়ে যান। বলা হয় সেই সময়টা দুর্গোৎসবের কাছাকাছি সময় ছিল। রাজা কৃষ্ণচন্দ্র নবাবের কারাগারেই সেবারের মত দুর্গাপূজা কাটান। যখন কারাগার থেকে অবশেষে তিনি মুক্ত হয়েছিলেন তখন দুর্গাপূজার শেষের সময়। নৌকা করে কৃষ্ণনগর ফেরার পথে রাজা বুঝলেন, সেই দিনটি বিজয়া দশমী। সে বার পুজোয় উপস্থিত থাকতে না পারায় রাজা অত্যন্ত বিষণ্ণ হয়ে পড়েন। বিষণ্ণ রাজা নৌকাতেই নাকি ঘুমিয়ে পড়েছিলেন এবং সেখানেই রাজা স্বপ্নে দেখেছিলেন যে একজন দেবী তাঁকে বলছেন আগামী কার্তিক মাসের শুক্লানবমী তিথিতে সেই দেবীর পুজো করতে। সেইমত রাজা দেবী জগদ্ধাত্রীর পূজা করেন। বলা হয়ে থাকে এই পূজার মাধ্যমেই বাংলায় জগদ্ধাত্রী পূজার সুচনা হয়।

যদিও দেবী জগদ্ধাত্রীর পূজা যে বাংলায় আগেও হয়েছে তার প্রমাণও পাওয়া যায়। শূলপাণি খ্রিস্টীয় পঞ্চদশ শতকে কালবিবেক গ্রন্থে কার্তিক মাসে জগদ্ধাত্রী পূজার উল্লেখ করেন। পূর্ববঙ্গের বরিশালে খ্রিস্টীয় অষ্টম শতকে নির্মিত জগদ্ধাত্রীর একটি প্রস্তরমূর্তি পাওয়া যায়। বর্তমানে এই মূর্তিটি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশুতোষ সংগ্রহশালার প্রত্নবিভাগে রাখা আছে। তবে এই পূজা বা মূর্তিগুলো অতি প্রাচীন। সাম্প্রতিককালে যে পূজার বহর আমরা দেখি, সেই পূজার সূচনা কিন্তু রাজা কৃষ্ণচন্দ্রের হাত ধরেই। তার পরেই চন্দননগরের জগদ্ধাত্রী পূজা। বলা হয়ে থাকে,  যে বছর রাজা কৃষ্ণচন্দ্র পুজো করেছিলেন, তার পরের বছর থেকে চন্দননগরে পুজোর প্রচলন করেছিলেন ইন্দ্রনারায়ণ চৌধুরী।

কৃষ্ণনগরের রাজবাড়ির পুজো এক ঐতিহ্যের পুজো। রাজবাড়িতে পুজো শুরুর পরেই ধীরে ধীরে কৃষ্ণনগরে শুরু হয়েছিল সার্বজনীন জগদ্ধাত্রী পুজো। এখনও মানুষ পুজো দেখতে ভিড় করে। অতীতের মতো এখনও কৃষ্ণনগরের সব সার্বজনীন প্রতিমা রাজবাড়ির সামনে দিয়ে শোভাযাত্রা করে বিসর্জনে যায়।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

To Top

 পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে সকলকে পড়ার সুযোগ করে দিন।  

error: Content is protected !!