বিজ্ঞান

সাপের কামড় থেকে বাঁচবেন কীভাবে

সাপ আমাদের শত্রু নয়, বন্ধু। প্রকৃতির খাদ্য শৃঙ্খলের অনেক ওপরে তার অবস্থান। অন্যান্য ছোট ছোট জীবজন্তুকে খেয়ে সে আমাদের পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। খুব ভয় না পেলে সে সাধারণত মানুষকে কামড়ায় না তবুও মানুষের মনে সাপ নিয়ে আছে অজানা আতঙ্ক। অনেকেই জানতে চান, সাপের কামড় থেকে বাঁচবেন কীভাবে অর্থাৎ সাপের কামড় এড়ানোর কী কী উপায় আমাদের হাতে আছে – এখানে আমরা সেই বিষয়েই আলোচনা করব।

প্রথমেই বলে রাখা ভাল, যে মানুষ সাধারণত বিষধর সাপের খাদ্য নয়, সে মানুষকে কামড়ায় ভয় পেয়ে। অর্থাৎ তার বিষ এখানে আত্মরক্ষায় সাহায্য করে। আর অন্যান্য ছোট প্রাণীকে সে কামড়ায় নিজের খাবার জোগাড় করতে। নিজের শরীরে বিষ তৈরি করতে তাকে অনেক শক্তি ব্যয় করতে হয়, বিষ তার কাছে দুর্মূল্য। অকারণে কোন প্রাণী, যে কিনা তার খাদ্য নয় (যেমন মানুষ) তাকে কামড়ে সে নিজের বিষ সাধারণত খরচ করে না। সাপ এমন জায়গাতেই বেশি থাকে যেখানে তার খাবারের প্রাচুর্য আছে – যেমন চাষের জমি, পুকুরের ধার, পোড়ো বাড়ি, ঝোপঝাড় ইত্যাদি। সাপ মাটির কম্পন শুনে বুঝতে পারে যে আশেপাশে কোনো বড় প্রাণী আছে কিনা, থাকলে সে সেই জায়গা ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করে। তাই এরকম কোনো জায়গায় গেলে মাটিতে পা দিয়ে আওয়াজ করতে করতে এগোলে সাপ দূরে চলে যায়। হাতে কোনো লাঠি থাকলে সেটাও মাটিতে জোরে জোরে ঠোকা যেতে পারে। তবে সেইক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যে পা অথবা লাঠি যেন সরাসরি সাপের গায়ে না পড়ে, নয়তো সাপ আত্মরক্ষার্থে কামড় বসাতে পারে। শহরাঞ্চলে বাড়ির আশেপাশে ডাস্টবিন থাকলে সেখানে ইঁদুরের উপদ্রব হয়, তার টানেও সাপ আসতে পারে। তাই বাড়ির আশপাশ সবসময় পরিষ্কার রাখা প্রয়োজন। সাপের পছন্দের লুকানোর জায়গা যেমন স্যাঁতস্যাঁতে জমি, অন্ধকার পোড়ো বাড়ি, ইঁদুরের গর্ত হয় এড়িয়ে চলতে হবে অথবা যথাযথ সতর্কতার সাথে নির্দিষ্ট সময় অন্তর পরিষ্কার করতে হবে।

বিদেশের বিভিন্ন জায়গায় সাপের উপদ্রবের হাত থেকে বাঁচতে চাষীরা গামবুট ব্যবহার করেন, এতে পায়ে সাপ কামড়ালেও তার বিষদাঁত চাষীর পা পর্যন্ত পৌঁছায় না। অনেকে সাপের কামড় থেকে বাঁচতে মোটা জিনসের প্যান্টও ব্যবহার করে থাকেন। এমন অনেক সাপ আছে যারা অন্যান্য বিষধর সাপ খেয়ে নেয়, যেমন শাঁখামুটি। আশেপাশে যদি এই প্রজাতির সাপ দেখা যায় তাহলে সেটিকে না মেরে তার উপযুক্ত বাসস্থানে ছাড়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

সাপের ঘ্রাণশক্তি প্রবল, দেখা গেছে তীব্র গন্ধযুক্ত বিভিন্ন পদার্থ সাপ পছন্দ করে না। এর মধ্যে প্রথমেই আসে কার্বলিক অ্যাসিড, ন্যাপথলিন, সালফার, লবঙ্গ তেল, রসুন, পিঁয়াজ এবং অ্যামোনিয়া। মনে করা হয় যে কিছু কিছু গাছের গন্ধে সাপ আসেনা। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল গাঁদা, রসুন, পিঁয়াজ, লেমনগ্রাস ইত্যাদি। যদিও এই নিয়ে কোনো নির্ভরযোগ্য বিজ্ঞানসম্মত তথ্য অপ্রতুল।

উপরিউক্ত আলোচনা থেকে এটা স্পষ্ট যে সাপের হাত থেকে বাঁচতে গেলে তার বাসস্থান এড়িয়ে চলতে হবে, বাড়ির আশেপাশের এলাকা যতটা সম্ভব পরিষ্কার রাখতে হবে, উপযুক্ত সতর্কতা অবলম্বন করে সাপের সম্ভাব্য বাসস্থানে যেতে হবে, তার খাবারের প্রাচুর্য আছে এরকম স্থান এড়িয়ে চলতে হবে এবং যথাযথ সর্পবিতারক ব্যবহার করতে হবে। এত কিছু সতর্কতা অবলম্বন করার পরেও যদি সাপে কামড়ায় তবে সময় নষ্ট না করে নিকটবর্তী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যোগাযোগ করা বাঞ্ছনীয়। একথা সব সময় মনে রাখতে হবে বাস্তুতন্ত্রে সাপের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে, তাই সাপের ব্যাপারে সাবধান হোন কিন্তু সাপকে মেরে ফেলবেন না।

সববাংলায় পড়ে ভালো লাগছে? এখানে ক্লিক করে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ভিডিও চ্যানেলটিওবাঙালি পাঠকের কাছে আপনার বিজ্ঞাপন পৌঁছে দিতে যোগাযোগ করুন – contact@sobbanglay.com এ।


Click to comment

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

To Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন।