আজকের দিনে

২৩ সেপ্টেম্বর ।। আন্তর্জাতিক ইশারা ভাষা দিবস

প্রতিবছর প্রতিমাসের নির্দিষ্ট কিছু দিনে বিভিন্ন দেশে কিছু দিবস পালিত হয়। ওই নির্দিষ্ট দিনে অতীতের কোনো গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা কে স্মরণ করা বা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরি করতেই এই সমস্ত দিবস পালিত হয়। পালনীয় সেই সমস্ত দিবস গুলির মধ্যে একটি হল আন্তর্জাতিক ইশারা ভাষা দিবস ( International Day of Sign Languages)। 

প্রতিবছর ২৩ সেপ্টেম্বর সারা বিশ্বজুড়ে আন্তর্জাতিক ইশারা ভাষা দিবস পালিত হয়। সারা বিশ্ব জুড়ে ছড়িয়ে থাকা বধির মানুষদের জন্য ইশারা ভাষার উৎপত্তি। এই ভাষাটিকে মান্যতা দেওয়ার এবং এর প্রয়োজনীয়তা ও গুরুত্ব বোঝানোর জন্য এই দিনটি পালিত হয়ে থাকে।

১৯৫১ সালে এই দিনটিতেই ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অফ দ্য ডিফ (World Federation of the Deaf, WFD) প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। তাই সেই দিনটিকে স্মরণ রেখে বিশ্ব ইশারা দিবস পালিত হয়। ২০১৭ সালের ১৯ ডিসেম্বর বধির মানুষদের  অধিকারকে আরও ভালো ভাবে তুলে ধরার জন্য রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ পরিষদ (United Nations General Assembly) এই দিনটি পালনের সিদ্ধান্ত নেয়। ২০১৮ সালে প্রথম  এই দিনটি  উদযাপন করা হয়েছিল আন্তর্জাতিক বধির সপ্তাহের একটি অঙ্গ হিসেবে।

ইশারা ভাষা হল মানুষের মধ্যে অন্যতম প্রাচীন যোগাযোগের মাধ্যম। যখন কথ্য ভাষার প্রচলন ঘটেনি তখন ইশারার মাধ্যমেই মানুষ একে অপরের সাথে যোগাযোগ গড়ে তুলত। কোন কিছুর প্রয়োজনীয়তা বা হ্যাঁ কিংবা না সূচক বাক্য ইশারার মাধ্যমে বোঝানো হত। ইশারা ভাষা হল এক রকমের দৃশ্য নির্ভর ভাষা। হাতের, শরীরের এবং মুখের নানা ভঙ্গিমার মাধ্যমে এই ভাষা ব্যক্ত করা হয়। প্রতিটি মানুষের প্রতিটি বস্তুকে বোঝানোর ইশারা একেক রকম হতে পারে, তবে এই ইশারা ভাষার একটি আন্তর্জাতিক মানদণ্ড আছে। এখন বধির মানুষেরাই মূলত এই ভাষা ব্যবহার করে থাকে।

 সারা বিশ্ব জুড়ে বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থা একযোগে এই দিনটি পালন করে থাকে। এই দিনটি পালন করার মূল উদ্দেশ্য হল শ্রবণসংক্রান্ত সমস্যায় ভোগা মানুষদের পাশে দাঁড়ানো এবং তাদের সাহায্যার্থে জনসচেতনতা গড়ে তোলা। অনেক সময় এইসব প্রান্তিক মানুষদের অনেক অমানুষিক ব্যবহারের সম্মুখীন হতে হয় শ্রবণসংক্রান্ত সমস্যা থাকার কারণে। সাধারণ মানুষকে এই সমস্ত মানুষদের প্রতি সহমর্মী ও সচেতন করার জন্য নানা প্রকল্প তৈরি করা হয়েছে।

নানান দেশে নানান ভাবে এই দিনটি পালন করা হয়ে থাকে। আলোচনা সভা, বিতর্ক সভা, সেমিনার (seminar), ওয়ার্কশপ  (workshop), বক্তৃতা, বিভিন্ন প্রদর্শনী ও নানান কর্মকান্ডের মাধ্যমে এই দিনটি উদযাপন করা হয়। ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অফ দ্য ডিফ-এর করা সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষায় বলা হয়েছে যে বর্তমানে সারা পৃথিবী জুড়ে প্রায় ৭২ মিলিয়ন বধির মানুষ রয়েছে। তাঁদের মধ্যে ৮০ শতাংশই তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলির বাসিন্দা যাঁরা প্রায় তিনশোরও বেশী ইশারা ভাষা ব্যবহার করে থাকেন। এই ইশারা ভাষা মৌখিক ভাষা থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। বিভিন্ন ধরনের ইশারা ভাষা থাকা সত্ত্বেও একটি  বিশেষ আন্তর্জাতিক ইশারা ভাষাকে মান্যতা দেওয়া হয়, যেটি যেকোনো আন্তর্জাতিক সম্মেলনে কিংবা  বিদেশ ভ্রমণের সময় ব্যবহৃত হয়। বধির মানুষদের বিকাশ, শিক্ষা এবং সামাজিক জীবনের সাথে যোগাযোগ গড়ে তোলার জন্য এবং এই ভাষার আরও ব্যাপ্তি ঘটানোর জন্য এই দিনটি পালন করা হয়। এই মুহূর্তে বিশ্বের প্রায় বেশিরভাগ দেশই এই কর্মকান্ডের সাথে যুক্ত আছে।

প্রতি বছরই এই দিনটি পালনের কোন না কোন থিম থাকে। ২০১৮ সালে থিম ছিল ” ইশারা ভাষার সাথে সবাই রয়েছে” (With sign language, everyone is included) এবং ২০১৯ সালে এর থিম ছিল “ইশারা ভাষায় সবার অধিকার” (Sign language rights for all)। ২০২০ সালের থিম হল “সবার জন্য ইশারা ভাষা” (Sign Languages Are for Everyone! )

সববাংলায় পড়ে ভালো লাগছে? এখানে ক্লিক করে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ভিডিও চ্যানেলটিওবাঙালি পাঠকের কাছে আপনার বিজ্ঞাপন পৌঁছে দিতে যোগাযোগ করুন – contact@sobbanglay.com এ।


Click to comment

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

To Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন।