শিল্প-সাহিত্য

গদাই লশকরি চাল

আমাদের প্রিয় বাংলা ভাষা একটি অন্যতম উৎকৃষ্ট ভাষা, এর শব্দ ও সাহিত্য ভান্ডার অপরিসীম। যেকোনো  উৎকৃষ্ট ভাষার একটি প্রধান সম্পদ হলো প্রবাদ, ইংরেজিতে যাকে বলে proverb। বাংলা ভাষায় প্রাচীনকাল থেকেই অনেক প্রবাদ লোকমুখে বা সাহিত্যে প্রচলিত আছে। এই রকমই একটি বহুল প্রচলিত প্রবাদ হল “গদাই লশকরি চাল”। কোনও মানুষের মধ্যে দীর্ঘসূত্রীতা অর্থাৎ ‘করছি করবো, যাচ্ছি যাবো, উঠছি উঠবো, আনছি আনবো’ এই ধরনের মানসিকতা বা চালচলন দেখা গেলে তাকে গদাই লশকরি চাল বলে অর্থাৎ সহজভাবে বললে আলসেমি বোঝাতে এই প্রবাদটির ব্যবহার করা হয়।

গদাধরকে ছোট করে বা আদর করে গদাই বলা হয়। আবার গদাধর মানে যারা গদা ধারণ করে, এই অর্থে বিষ্ণু বা নারায়ণকেও বোঝানো যায়। লশকর (লস্কর) ছয় শত বছরেরও পুরনো একটি পদবী যার অর্থ সৈনিক। গদাই লশকর এর অর্থ দাঁড়ায় গদাধারী সৈনিক।

প্রাচীনকালে যুদ্ধে ‘গদা’ নামক এক প্রকার অস্ত্র ব্যবহার করা হতো। এটি দেখতে ছিল লম্বা মোটা লাঠির মতো ও সামনের দিক গোল মুন্ড বিশিষ্ট। এটি ছিল লোহার তৈরি। গদার আয়তন এবং ওজন অনেক বেশি ছিল। যেসব সৈনিকরা গদার ব্যবহার করত তাদের গদাধর বা গদাই বলা হত। গদার আয়তন ও ওজনের কারণে যুদ্ধে গদাধারী সৈনিকরা অন্য সৈনিকদের তুলনায় ধীরগতি সম্পন্ন হত। তাই ধীরগতিতে কোন কাজ করা বোঝাতে গদাই লশকরি চাল বলা হত।

এই গদাই লশকর ও গদা বহনকারী সৈনিকদের বাস্তব জীবনে অলস ব্যক্তিদের প্রতিছবি হিসাবে গণ্য করা হয়েছে। এদের আঠারো মাসে বছর শেষ হয়। সব কাজেতেই এদের করছি করবো এরকম একটা ভাব। কিন্তু কতদিনে কাজ শেষ হবে তার নির্দিষ্ট কোনো সময় নেই। হচ্ছে হবে, আনছি আনবো, যাচ্ছি যাবো, উঠছি উঠবো এই গান গেয়েই এদের দিন কেটে যায়। অথচ কাজের কাজ কিছু হয় না। তো এই ধরণের ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে গদাই লশকরি চাল প্রবাদটির প্রয়োগ করা হয়ে থাকে।

উদাহরণ – আর কত দিন এই গদাই লশকরি চাল চলবে, পরীক্ষা তো সামনেই, এরপরও ঢিলেমি দিলে সিলেবাস শেষ হবে না!

  • telegram sobbanglay

তথ্যসূত্র


  1. প্রবাদের উৎস সন্ধান - সমর পাল, শোভা প্রকাশ / ঢাকা ; ৫৭ পৃঃ

Click to comment

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

To Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন।

বুনো রামনাথ - এক ভুলে যাওয়া প্রতিভা



এখানে ক্লিক করে দেখুন ইউটিউব ভিডিও

সাহিত্য অনুরাগী?
বাংলায় লিখতে বা পড়তে এই ছবিতে ক্লিক করুন।

বাংলাভাষায় তথ্যের চর্চা ও তার প্রসারের জন্য আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন