সব

১২ই অগাস্ট ।। জাতীয় গ্রন্থাগারিক দিবস

ইউনেস্কো'র মতে সাধারণ গ্রন্থাগার হল- পিপলস্‌ ইউনিভার্সিটি অর্থাৎ জনগণের বিশ্ববিদ্যালয়।এই গ্রন্থাগার যে পড়াশোনা, গবেষণারও একটি বিষয় হতে পারে সেটি প্রথম যিনি দেখিয়েছিলেন তিনি এস.আর.রঙ্গনাথন বা সিয়ালি রামামৃতা রঙ্গনাথন। আজ গ্রন্থাগার বিজ্ঞানের  এই প্রাণপুরুষ এস.আর.রঙ্গনাথনের জন্মদিন। তার জন্মদিনটি সারা ভারতে জাতীয় গ্রন্থাগারিক দিবস(National Librarian Day) হিসেবে পালিত হয়।

এস.আর.রঙ্গনাথন ১৮৯২-এর ১২ই অগাস্ট তামিলনাড়ুর থাঞ্জাভুর জেলার সিয়ালি নামে একটি ছোট্ট শহরে জন্ম হয়। উনি ছিলেন গণিতজ্ঞ এবং একাধারে গ্রন্থাগারিক। উনিই প্রথম গ্রন্থাগারকে বৈজ্ঞানিক ভাবে পড়াশোনার একটি বিষয় হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন।গ্রন্থাগার বিজ্ঞানে ওনার অবদান-  গ্রন্থাগার বিজ্ঞানের পাঁচটি নীতি এবং কোলোন ক্লাসিফিকেশান সিস্টেম আনয়ন।১৯৭২ এর ২৭শে সেপ্টেম্বর বেঙ্গালুরুতে এস.আর.রঙ্গনাথনের মৃত্যু বরণ করেন।

বাংলায় প্রথম গ্রন্থাগার দিবস পালিত হত - ২০শে ডিসেম্বরে। ১৯২৫ সালে ২০শে ডিসেম্বর কলকাতার অ্যালবার্ট হলে (বর্তমান কফি হাউস)একটি  সম্মেলনে  গঠন হয়- বঙ্গীয় গ্রন্থাগার পরিষদ।এই বঙ্গীয় গ্রন্থাগার পরিষদের প্রথম নির্বাচিত সভাপতি  হন গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ।এর বেশ কিছু বছর পর ২০শে ডিসেম্বর দিনটিকে বঙ্গীয় গ্রন্থাগার পরিষদ প্রথম গ্রন্থাগার দিবস হিসেবে পালন করে। গ্রন্থাগার দিবসে যারা স্মরণীয় — কুমার মণীন্দ্রদেব রায়, সুশীলকুমার ঘোষ, তিনকড়ি দত্ত, রাজেন্দ্রলাল মিত্র ,ড. নীহাররঞ্জন রায়, প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়, প্রমীলচন্দ্র বসু, ফণীভূষণ রায় প্রমুখেরা।

 

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

To Top

 পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে সকলকে পড়ার সুযোগ করে দিন।  

error: Content is protected !!