বিজ্ঞান

কানে তালা লাগে কেন

শীতকালে খুব ঠান্ডা লাগলে, জোরে হাঁচি বা কাশি হলে অথবা পাহাড়ে বেড়াতে গেলে কিংবা এরোপ্লেনে উঠলে অনেক সময়েই আমাদের কানে তালা লেগে যায়। তখন কানের ভেতরে ভোঁ ভোঁ আওয়াজ হয়, ঠিকমত শুনতে পাওয়া যায় না। আবার কখনো কান থেকে জল গড়ায়। এরকম সমস্যার সম্মুখীন আমরা সবাই একবার-দুবার হয়েছি। কিন্তু কখনো ভেবে দেখেছেন, এরকম হয় কেন? আসুন জেনে নেওয়া যাক কানে তালা লাগে কেন।

মানুষের কানের মোট তিনটি অংশ, যথা – বহিঃকর্ণ, মধ্যকর্ণ ও অন্তঃকর্ণ। কানের পর্দা কানকে বহিঃকর্ন ও মধ্যকর্ণে ভাগ করে। মধ্যকর্ণে অডিটরি টিউব (auditory tube) নামে একটি নল আছে যা মধ্যকর্ণের সঙ্গে গলা ও নাকের সংযোগ রক্ষা করে। এছাড়াও এটি মধ্যকর্ণের সঙ্গে পরিবেশের বায়ুচাপের ভারসাম্য বজায় রাখে। কোনো কারণে অডিটরি টিউব বন্ধ হয়ে গেলে বা ঠিকঠাক কাজ না করলে কানের সঙ্গে পরিবেশের যোগাযোগ স্থাপিত হয় না এবং কানের মধ্যে জল জমে সংক্রমণ সৃষ্টি হতে পারে। এর ফলে আমাদের কানে একধরণের অস্বস্তি তৈরি হয় এবং আমরা ভালো করে শুনতে পাইনা। তখন আমরা বলি, ‘কানে তালা লেগে গেছে’।
কানে তালা লাগার পিছনে আছে অনেক কারণ। যেমন-

• জোরে হাঁচি, কাশি বা নাক ঝাড়তে গেলে যদি কোনোভাবে অডিটরি টিউব বায়ুশূন্য হয়ে যায়, তবে কানের সাথে পরিবেশের বায়ুচাপের ভারসাম্য নষ্ট হয়। তখন কানে তালা লাগে। এই ধরনের ঘটনার জন্য কানে তালা লাগা রোজকার জীবনে প্রায়ই ঘটে। এই একই কারণের জন্য উচ্চতার পরিবর্তন হলেও কানে তালা লাগে। পাহাড়ি এলাকায় বেড়াতে গেলে বা এরোপ্লেনে উঠলে বায়ুচাপের পরিবর্তন হয়। তখন কানের সাথে বাইরের বায়ুচাপের ভারসাম্য বিঘ্নিত হয়।


প্রাকৃতিক খাঁটি মধু ঘরে বসেই পেতে চান?

ফুড হাউস মধু

তাহলে যোগাযোগ করুন – +91-99030 06475


 


• কানের ভেতরে জল জমে গেলে এবং সেই জলে কোনো ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাস বংশবৃদ্ধি শুরু করলে কানে সংক্রমণ ঘটে। এর ফলে কানে ব্যথা হয় এবং তালা লেগে যাওয়ার অনুভূতি হয়। সাধারণত ঠান্ডা লাগার ফলে এই ধরনের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনা লাগাতার চলতে থাকলে মাথার মধ্যে মিউকাস জমে যায়।

• কানের মধ্যে অতিরিক্ত ময়লা যাকে আমরা সাধারণ ভাষায় কানের ‘খোল’ বলি তা জমে গেলে অডিটরি টিউব বন্ধ হয়ে যায়। এর ফলে কানে তালা লেগে যায়।

• কানের মধ্যে কোনো বাইরের বস্তু যেমন তুলো, সুতো বা কাগজের টুকরো ঢুকলে তা গিয়ে অডিটরি টিউবকে বন্ধ করে দেয়। ফলে কানে তালা লাগতে পারে। এই সমস্যা সাধারণত ছোটদের ক্ষেত্রেই বেশি দেখা যায়। তারা খেলতে গিয়ে এধরণের কোনো বস্তু কানে ঢুকিয়ে ফেলে এবং কানের সমস্যা তৈরি হয়।

• সাঁতার কাটতে বা স্নান করতে গিয়ে কানে জল ঢুকে গেলেও কানে তালা লাগে।

• বর্তমানে কোভিড-১৯ ভাইরাসের কারণেও কানে তালা লাগতে পারে বলে গবেষকরা জানাচ্ছেন।
কানে তালা লাগলে আমরা ঠিকভাবে শুনতে পাইনা। কখনো কানে খুব ব্যথা হয়। কানের ভিতর ফরফর বা ভোঁ ভোঁ করে। এছাড়া কান থেকে জল বেরোতে দেখা যায়। সমস্যা বেশি গভীরে চলে গেলে কান থেকে রক্ত বা পুঁজও বেরিয়ে আসে। এর প্রতিকারের জন্য নিম্নলিখিত উপায়গুলি ব্যবহার করা যেতে পারে-

• সাধারণ ভাবে কাশি, হাঁচি বা নাক ঝাড়ার জন্য কানে তালা লাগলে এবং পাহাড়ি এলাকায় বেড়াতে গেলে বা প্লেনে চড়লে কানে তালা ধরা এড়ানোর জন্য ‘ভালসালভা কৌশল’ (valsalva maneuver) প্রয়োগ করা উচিত। কৌশলটি হল, জোরে শ্বাস টেনে নিয়ে হাতের দুই আঙুলের সাহায্যে নাকের ফুটো চেপে বন্ধ করে দিতে হবে। বন্ধ থাকবে মুখও। এরপর ওই বন্ধ নাক দিয়েই শ্বাস ছাড়ার চেষ্টা করতে হবে। তবে অতিরিক্ত জোরে শ্বাস ছাড়া উচিত নয়। এছাড়াও কিছু সাধারণ প্রক্রিয়া যেমন জল পান করা, চুইংগাম চিবানো, হাই তোলা, ঘন ঘন ঢোক গেলা প্রভৃতি করা যেতে পারে। ব্যবহার করা যেতে পারে ইয়ারপ্লাগ ও ডিকনজেসট্যান্ট (decongestants) জাতীয় ওষুধও। তবে যদি এইসব প্রক্রিয়া ব্যবহার করার পরেও বেশ কিছুদিন ধরে অস্বস্তি না কমে, তবে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

• ঠান্ডা লেগে কানে তালা লাগলে দেরি না করে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। অ্যান্টি-হিস্টামিন জাতীয় ওষুধ, বয়স উপযোগী বিভিন্ন নাকের ড্রপ, সংক্রমণ বেশি বেড়ে গেলে অ্যান্টিবায়োটিকও ব্যবহার করা হয়ে থাকে। কানে ব্যথা হলে তা কমানোর জন্য প্যারাসিটামল ব্যবহারের পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

• কানে অতিরিক্ত ময়লা জমে কানে তালা লাগলে সেই ময়লা পরিষ্কার করে নিতে হয়। ময়লা যদি বেশি শক্ত হয়ে যায় তাহলে এক-দুফোঁটা তেল ঢেলে দিলে তা নরম হয়ে যায়। এরপর সিরিঞ্জের সাহায্যে ময়লা বার করে নেওয়া যায়। তবে কানের পর্দায় ফুটো থাকলে এই পদ্ধতি ব্যবহার করা উচিত নয়।

• সাঁতার কাটা বা স্নান করার সময় কানে জল ঢুকলে অ্যালকোহল বা অ্যালকোহল ও ভিনিগারের মিশ্রণ কানে দেওয়া যেতে পারে। এটি কানকে শুষ্ক করতে সাহায্য করে। আজকাল কান শুকনো করার জন্য বিভিন্ন ড্রপও পাওয়া যায়। তবে কানের পর্দায় ফুটো থাকলে এগুলি ব্যবহার করা যায় না। এছাড়াও জলে নামার আগে কানে ইয়ারপ্লাগ লাগিয়ে নিলে জল ঢোকার সম্ভাবনা কমে যায়।
কানে তালা ধরা থেকে মুক্তি পেতে আছে ঘরোয়া কিছু উপায়ও, যেমন-

• নুন-জলে গার্গল করলে নাক ও কানের মিউকাস কমে যায়। ফলে কমে যায় কানের তালা ধরার অস্বস্তি।

• হালকা গরম জলে স্নান করলেও স্বস্তি পাওয়া যায়।

• হটব্যাগের সাহায্যে গরম ভাপ নিলে কানে জমা জল ও মিউকাস বেরিয়ে যায়। ফলে কমে যায় ব্যথা ও অস্বস্তি।

• বিভিন্ন প্রাকৃতিক তেল যেমন, চা গাছের তেল, ইউক্যালিপটাস তেল, পিপারমিন্ট তেল প্রভৃতি জলে মিশিয়ে ভাপ নিলেও তালা ধরা কমে। এসব তেলে অ্যান্টিবায়োটিক, অ্যান্টিসেপটিক ও অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য থাকে।

  • এই ধরণের তথ্য লিখে আয় করতে চাইলে…

    আপনার নিজের একটি তথ্যমূলক লেখা আপনার নাম ও যোগাযোগ নম্বরসহ আমাদের ইমেল করুন contact@sobbanglay.com

  • সববাংলায় সাইটে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য আজই যোগাযোগ করুন
    contact@sobbanglay.com

Click to comment

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

To Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন।

-
এই পোস্টটি ভাল লেগে থাকলে আমাদের
ফেসবুক পেজ লাইক করে সঙ্গে থাকুন

আধুনিক ভ্রূণ বিদ্যার জনক পঞ্চানন মাহেশ্বরীকে নিয়ে জানুন



ছবিতে ক্লিক করে দেখুন ভিডিও