বিজ্ঞান

জলে ভিজিয়ে রাখলে আঙুল চুপসে যায় কেন

অনেকক্ষণ ধরে স্নান করলে বা জল ঘাঁটলে আমরা দেখেছি আমাদের হাত ও পায়ের আঙুল, তালু ইত্যাদি চুপসে অনেকটা কিসমিসের মত হয়ে যায়। অনেকেই ভাবেন আঙুলে, তালুতে জল ঢুকে গিয়ে এরকম হয় কিন্তু সেটা সত্যি নয়। এখানে আমরা জেনে নেব জলে ভিজিয়ে রাখলে আঙুল চুপসে যায় কেন।

প্রথমে দেখে নেওয়া যাক আঙুলে জল ঢুকে এরকম চুপসে যাওয়ার ধারণা ভুল কেন। প্রথমত, জলের মধ্যে অনেকক্ষণ হাত বা শরীর ডুবিয়ে রাখলে জল শোষণ করে আঙুল বা তালু ফুলে গোল হয়ে যাওয়ার কথা, চুপসে যাওয়ার কথা নয়। দ্বিতীয়ত, আমাদের ত্বক বাইরের জলকে আটকে রাখার জন্য যথেষ্ট উপযুক্ত আবরণ তাই এইভাবে জল ভিতরে ঢুকতে পারে না।

বিংশ শতাব্দীর তিনের দশকেই বিজ্ঞানীরা মোটামুটি জেনে গিয়েছিলেন যে উপরের ধারণা ঠিক নয় কারণ হাত বা পায়ের স্নায়ু কোন কারণে নষ্ট হয়ে গিয়ে থাকলে এই ধরণের ঘটনা ঘটে না। অতএব আঙুল বা তালু চুপসে যাওয়া অবশ্যই স্নায়ুর সঙ্গে জড়িত কোন ঘটনা। তাঁরা এও অনুমান করেছিলেন এই আঙুল চুপসে যাওয়ার ঘটনাটি সহজাত প্রতিবর্ত ক্রিয়ার মতোই ঘটে – ঠিক যেমন আমরা শ্বাস নিই, গরমে ঘাম হয় ইত্যাদি। বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, এক্ষেত্রে রক্তনালীগুলি সঙ্কুচিত হয়ে যায় ফলে এই সব অঞ্চলে রক্তপ্রবাহ কমে গিয়ে তরলের পরিমাণ কমে যায় ও আঙুল, তালু ইত্যাদি চুপসে যায়। তবে ঠিক কেন এরকম শারীরবৃত্তীয় পরিবর্তন হয় তার ব্যাখ্যা বিংশ শতাব্দীর শেষে এসেও পাওয়া যায়নি।

২০১১ সালে আমেরিকার ইদাহো ইউনিভার্সিটির নিউরোবায়োলজিস্ট মার্ক চাঙ্গিজি (Mark Changizi) ও তাঁর সহকর্মীরা বলেন যে যেহেতু এই প্রক্রিয়াটি একটি সক্রিয় প্রক্রিয়া অতএব এর সঙ্গে বিবর্তনের কোন যোগাযোগ নিশ্চয়ই থাকবে। পাশাপাশি এও বলেন, হাত-পায়ের আঙুল চুপসে গিয়ে যেধরনের নকশা তৈরি করে তা নিকাশি ব্যবস্থার মত এবং কোন কিছু শক্ত করে ধরার পক্ষে খুব উপযোগী। কিন্তু তখনও এই ধরণের সংকোচন বা চুপসে যাওয়া কি সুবিধা দিতে পারে তার কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। এর পর ২০১৩ সালে ইংল্যান্ডের নিউক্যাসল ইউনিভার্সিটির টম স্মাল্ডার্স (Tom Smulders) ও তাঁর সহকর্মীরা প্রমাণ করেন যে হাত এই ধরণের চুপসে যাওয়ার ফলে যেকোন ভিজে বস্তকে সহজে শক্ত করে ধরতে পারে বা গ্রিপ করতে সহজ হয়। বৃষ্টির সময় বা জলে দাঁড়ানো একই ভাবে পায়ের আঙুল চুপসে গিয়ে সহজ করে তোলে। পাশাপাশি এও দেখান যে চুপসে যাওয়া আঙুলের সাহায্যে শুকনো বস্তু ধরতে বাড়তি কোন সুবিধা বা অসুবিধা কিছুই হয় না।

এই আবিষ্কারের সাথে সাথেই এটা বোঝা যায় যে আমাদের পূর্বপুরুষরা যখন জলাভূমি থেকে খাদ্য সংগ্রহ করত তখন চুপসে যাওয়া আঙুল খাদ্যবস্তু শক্ত ভাবে ধরতে সুবিধা করে দিত। অন্যান্য অনেক শারীরবৃত্তীয় ঘটনার মত বিবর্তনের পথে বিশেষ সুবিধা পাওয়ার জন্যই আজও জলে ভিজিয়ে রাখলে আঙুল চুপসে যায়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মানুষ ছাড়া ম্যাকাক (macaque) প্রজাতির একধরণের বাঁদরের ক্ষেত্রেও এরকম ঘটতে দেখা যায়।

Click to comment

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

To Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন।