আজকের দিনে

৭ মে ।। বিশ্ব অ্যাথলেটিক্স দিবস

প্রতি বছর প্রতি মাসের নির্দিষ্ট কিছু দিনে বিভিন্ন দেশেই কিছু দিবস পালিত হয়। নির্দিষ্ট দিনে অতীতের কোনো গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাকে স্মরণ করা বা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরী করতেই এই সমস্ত দিবস পালিত হয়। বিশ্বের পালনীয় সেই সমস্ত দিবসগুলি মধ্যে একটি হল বিশ্ব অ্যাথলেটিক্স দিবস (World Athletics Day)।

প্রতি বছর ৭ মে ‘বিশ্ব অ্যাথলেটিক্স দিবস’ হিসেবে পালিত হয়। সমগ্র বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশেই এই দিনটি পালন করা হয়।

বিশ্ব অ্যাথলেটিক্স দিবস প্রথম পালিত হয় ১৯৯৬ সালে। ইন্টারন্যাশনাল আ্যমেচার অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন-এর পক্ষ থেকে আটলান্টায় আয়োজিত অলিম্পিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার শতবর্ষ উপলক্ষে বিশ্ব আ্যথলেটিকস দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। অ্যাথলেটিক্স যুব সম্প্রদায়ের অংশগ্রহণ বাড়ানোর উদ্দেশ্যে ১৯৯৬ সাল থেকে এই দিবস পালন হয়ে আসছে। বিশ্বে আ্যথলেটিক্সের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা হল ইন্টারন্যাশনাল আ্যমেচার অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন যেটি ১৯১২ সালে সুইডেনে প্রথম স্থাপিত হয়। প্রতি বছর মে মাসে এই দিবসটি পালনের সিদ্ধান্ত হলেও কোন নির্দিষ্ট তারিখ ঠিক হয়নি। ২০১৯ এবং ২০২০ সালে একই তারিখ অর্থাৎ ৭ মে এই দিবসটি পালনের সিদ্ধান্ত হয়। এই দিবস পালনে আয়োজিত ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের বয়স ২০০৬ সালে ৭-১৫ বছর থেকে বাড়িয়ে ১৩-১৭ করা হয়েছে।

এই দিবস পালনের নেপথ্যে প্রধানত চারটি কারণ রয়েছে। কারণগুলি হল
১. যুব সম্প্রদায়ের মধ্যে আ্যথলেটিক্সকে জনপ্রিয় করে তোলা।

২. স্কুল সহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে প্রধান খেলা হিসেবে আ্যথলেটিক্সকে জনপ্রিয় করে তোলা।

৩. অ্যাথলেটিক্স নিয়ে জনমানসে সচেতনতা বৃদ্ধি করা।

৪. যুব সম্প্রদায়, খেলাধূলা ও পরিবেশের মধ্যে দৃঢ় যোগসূত্র স্থাপন করা।

আ্যথলেটিক্স ক্রীড়া সম্বন্ধীয় এমন একটি ভাগ যেখানে শারীরিক ক্ষিপ্রতা ও নমনীয়তার প্রয়োজন ভীষণভাবে হয়। আ্যথলেটিকসএর মধ্যে লং জাম্প, হাই জাম্প, ট্র্যাক এন্ড ফিল্ড ইত্যাদি খেলা পড়ে। এই দিবসটি উপলক্ষে যে যে ইভেন্টগুলি আয়োজিত হয়ে থাকে সেগুলি হল

১. স্প্রিন্ট ইভেন্ট
২. মিডল ডিস্ট্যান্স ইভেন্ট (১৫০০মিটার)
৩. হার্ডলস রেস
৪. জাম্পিং
৫. থ্রোয়িং
৬. ওয়াকিং রেস

এই প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে থেকে লটারির মাধ্যমে দুজন কিশোর এবং দুজন কিশোরীকে বেছে নেওয়া হয় যাদের অলিম্পিক প্রতিযোগিতায় আমন্ত্রণ জানানো হয়।

বর্তমানে সমগ্র বিশ্বেই অত্যন্ত উৎসাহের সঙ্গে এই দিনটি পালিত হয়ে থাকে। একশোটিরও বেশি দেশ এই দিবস পালনে অংশগ্রহণ করে থাকে।

Click to comment

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

To Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন।