ইতিহাস

ফেদেরিকো গার্সিয়া লোরকা

ফেদেরিকো গার্সিয়া লোরকা (Federico García Lorca) হলেন স্পেনের সর্বকালের শ্রেষ্ঠ কবি এবং বিশিষ্ট নাট্যকারদের মধ্যে একজন যিনি প্রথম স্পেনীয় সাহিত্যে পরাবাস্তবতা ও প্রতীকীবাদের সূচনা করেন।   

১৮৯৮ সালের ৫ জুন স্পেনের ফুয়েন্তে ভ্যাকুয়ারসে ফেদেরিকো গার্সিয়া লোরকার জন্ম হয়৷ তাঁর বাবা ফেডারিকো গার্সিয়া রড্রিগেজ পেশায় ছিলেন ছিলেন একজন সম্পন্ন কৃষক। তাঁর মায়ের নাম ভিসেন্তা লোরকা রোমেরিও যিনি পেশায় স্কুলশিক্ষিকা এবং পিয়ানোবাদক ছিলেন। মায়ের কাছে খুব ছোটবেলাতেই সঙ্গীতের হাতেখড়ি হয় লোরকার। 

ফেদেরিকো গার্সিয়া লোরকা ১৯১৫ সালে তাঁর গ্র্যাজুয়েশন শেষ করে গ্রানাডা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন এবং সাহিত্য নিয়ে পড়াশোনার জন্য ভর্তি হন যদিও পড়াশোনার থেকে সংগীতের প্রতি তাঁর আগ্রহ অনেক বেশী ছিল৷ মাত্র এগারো বছর বয়েসে তিনি আন্তোনিও সেগুরা মেসা’র কাছে ছয় বছরের জন্য পিয়ানোর পাঠ নেন। লোরকার সঙ্গীতকে জীবিকা হিসেবে নিয়ে জীবনে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্নকে অনুপ্রাণিত করেছিলেন। 

লোরকা বহুমুখী প্রতিভার অধিকারি ছিলেন৷ ১৯১৬ – ১৯১৭ তিনি তাঁর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকের সঙ্গে স্পেনের বিভিন্ন প্রান্তে ভ্রমণ করেন৷ এই অধ্যাপকের দ্বারাই অনুপ্রাণিত হয়ে তিনি তাঁর প্রথম ভ্রমণ বৃত্তান্ত রচনা করেন ‘Impressions and Landscapes নামে যেটি ১৯১৮ সালে বই আকারে প্রকাশ পায়৷ এই বইটির প্রকাশনার অর্থ তাঁর বাবা দিয়েছিলেন। এই সময়ই তাঁর বন্ধুত্ব হয়েছিল সুরকার মানুয়েল দে ফাইয়ার সাথে এবং তখন থেকেই স্পেনীয় প্রাচীন লোকগীতি সংগ্রহে তাঁর আগ্রহ জন্মায়।

১৯১৬ সালে তিনি রচনা করেন ‘নকচার্ন’ (Nocturne), ‘ব্যালাড’ (Ballade) এবং ‘সোনাটা’ (Sonata) নামে তিনটি গদ্য৷ ১৯১৯ সালে লোরকা মাদ্রিদে চলে যান যেখানে প্রায় পনেরো বছর তিনি ছিলেন৷ মাদ্রিদে থাকাকালীন লোরকা’র লুই বুনুয়েল এবং সালভাদর দালির মতন সৃজনশীল শিল্পীর সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্ব হয়েছিল৷ এছাড়া নাট্যকার এডুয়ার্ডো মারকুইনা এবং ‘মাদ্রিদের টিট্রো এসলাভা’-র পরিচালক গ্রেগরিও মার্টিনিজ সিয়েরার সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে ওঠে৷  বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনায় তাঁর আগ্রহ ছিল না তিনি বরং মগ্ন থাকতেন অভিনয়, কবিতাপাঠ ও প্রাচীন লোকগীতি সংগ্রহে। ১৯১৯ – ১৯২০ সালে  তিনি সিয়েরার নিমন্ত্রণে ‘দ্য বাটারফ্লাইস এভিল স্পেল’  (The Butterfly’s Evil Spell) নামে একটি নাটক লিখে ফেলেন। নাটকটির মঞ্চ সাফল্য লোরকাকে আরও নাটক রচনায় অনুপ্রাণিত করে৷ লোরকা’র মতে তাঁর লেখা প্রথম নাটক  ‘মারিয়ানা পিনেদা’ (Mariana Pineda)৷  লোককাহিনী নিয়ে লেখা তাঁর প্রথম কবিতার বই  ‘লিব্রো দে পোয়েমাস’ ১৯২১ সালে প্রকাশিত হয়। তাঁর কবিতায় ঘুরে ফিরে এসেছে ধর্মীয় বিশ্বাস, একাকিত্ব ও প্রকৃতির নানা অনুষঙ্গ। ১৯২২ সালের শুরুর দিকে লোরকা স্পেনের ফ্ল্যামেঙ্কো শিল্পীদের উৎসব ‘কনকারসো ডে ক্যান্টে যন্ডো’ (Concurso de Cante Jondo) প্রচারের উদ্দেশ্যে সুরকার ম্যানুয়েল ডি ফালা’র সাথে যোগ দিয়েছিলেন৷ স্পেনের বিখ্যাত ‘ডিপ সং’ গায়ক ও পিয়ানোবাদকেরা এখানে অংশ নেন। লোরকা ‘সাতাশের প্রজন্ম’ নামে একটি শিল্পীসংঘে যোগ দেন এই সময়ে। এই সংঘে ছিলেন সালভাদর দালি ও লুইস বুনুয়েলের মতো বিখ্যাত শিল্পীরা  যাঁরা তাঁকে পরাবাস্তববাদ ও প্রতীকবাদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন। এই দুই শিল্পদর্শনের আশ্রয়ে তাঁর কবিতা হয়ে ওঠে সূক্ষ্ম ব্যঞ্জনাময়৷

গার্সিয়া লোরকা ক্রমশ স্পেনের অ্যাভান্ট গার্দ (avant-garde) ধারার সাথে জড়িয়ে পড়েন। এই সময় তিনি ‘ক্যানসিওনেস’ (Canciones) নামে একটি কবিতা সংগ্রহ প্রকাশ করেন৷ ১৯২৭ সালের ২৫ জুন২ জুলাই পর্যন্ত বার্সেলোনার গ্যালারিস ডালমাউতে একটি ধারাবাহিক চিত্র প্রদর্শনের জন্য লোরকাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। লোরকার আঁকা ছবিগুলি জনপ্রিয় এবং অ্যাভান্ট গার্দ দুই শৈলীর প্রভাব দেখা যেত৷ ১৯২৮ সালে প্রকাশ পায় তাঁর লেখা কবিতার বই ‘রোমান্সেরো হিতানো’ বা জিপসি গাথা। এই বই তাঁকে খ্যাতির তুঙ্গে নিয়ে যায়৷ কবিতার পাশাপাশি তিনি নাট্যচর্চাও করে যাচ্ছিলেন। তাঁর রচিত নাটক ‘মারিয়ানা পিনেদা’ ১৯২৭ সালে বার্সেলোনায় মঞ্চস্থ হলে বিপুল প্রশংসিত হয়৷ পরের নাটক ‘দ্য শুমেকারস প্রডিজিয়াস ওয়াইফ’ (The Shoemaker’s Prodigious Wife) ছিল একটি প্রহসন৷ 

লোরকা ১৯২৯ সালে নিউইয়র্কে পাড়ি দেন৷ সেখানে গিয়ে তিনি ঘুরে বেড়ান হার্লেম ও ভার্মন্টে। নিউইয়র্কে তিনি কলম্বিয়া স্কুল অব জেনারেল স্টাডিজে ইংরেজি নিয়ে ভর্তি হলেও বেশীরভাগ সময় তিনি লেখালেখি নিয়েই ব্যস্ত থাকতেন। কিছুদিন কিউবার হাভানাতেও তিনি কাটিয়েছিলেন। নিউইয়র্কে বসে তিনি যে কবিতাগুলো লেখেন সেসব সংকলিত হয় ‘পোয়েতা এন নুয়েভা ইয়র্ক’ বা নিউইয়র্কের কবিতা নামক বইয়ে। বইটি অবশ্য প্রকাশিত হয়েছিল তাঁর মৃত্যুর পরে। এই বইয়ের কবিতাগুলিতে তাঁর নাগরিক যন্ত্রণা ও একাকিত্ববোধ তীব্র ভাবে ফুটে উঠেছে।

১৯৩০ সালে দ্বিতীয় স্পেনীয় প্রজাতন্ত্র ঘোষিত হলে লোরকা দেশে ফিরে আসেন। সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় তাঁকে নাট্যবিষয়ক সংস্থা ‘বাররাকা’র পরিচালক পদে নিযুক্ত করেন যার কাজ ছিল সাধারণ জনগণের জন্য নাটক প্রদর্শন। তিনি গ্রামেগঞ্জে গিয়ে নিজে নাটক পরিচালনা করে তাতে অভিনয় করে বিনামূল্যে নাটক দেখাতে থাকেন। বাররাকা’র তত্ত্বাবধানে স্পেনীয় ক্লাসিকগুলো দেখানো হত সাথে লোরকার নিজের নাটকগুলোও যেমন ‘ব্লাড ওয়েডিং’ (Blood Wedding), ‘ইয়েরমা’ (Yerma) এবং ‘দ্য হাউস অব বারনারদা অ্যালবা’ (The House of Bernarda Alba) ইত্যাদি৷ এই নাটকগুলি ছিল বুর্জোয়া স্পেনীয় সমাজের রীতিনীতিগুলির বিরুদ্ধে নিদারুণ একেকটি বিদ্রোহ। মৃত্যুর কয়েক বছর আগে লোরকা একটি কবিতায় লিখেছিলেন “আমি বুঝতে পারছি/ খুন করা হয়েছে আমাকে /তারা কাফে, কবরখানা আর /গির্জাগুলো তন্ন তন্ন /করে খুঁজছে…।” (অমিতাভ দাশগুপ্ত ও কবিতা সিংহের লোরকার শ্রেষ্ঠ কবিতা থেকে)

বিশ্বশিল্প সাহিত্যে তিনি স্থায়ী আসন করে নিয়েছেন তাঁর কবিতা ও নাটকের জন্য। তাঁর কবিতায় রয়েছে গানের সুর, ছবির রং তাই হয়ত তাঁর কবিতায় ফুটে উঠেছে গীতিময়তা ও চিত্রধর্মিতা৷ তাঁর উল্লেখযোগ্য সাহিত্যকীর্তির মধ্যে রয়েছে   Impresiones y paisajes (Impressions and Landscapes ) ১৯১৮ সাল, Libro de poemas (Book of Poems)- ১৯২১ সাল, Poema del cante jondo (Poem of Deep Song) ১৯২১ সালে লেখা হলেও প্রকাশ পায় ১৯৩১ সালে,  Suites, Odes( ১৯২৮) ,  Romancero gitano ( ১৯২৮) , Seis poemas gallegos, Primeras canciones ইত্যাদি৷ তাঁর রচিত নাটকগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল,  Christ: A Religious Tragedy  ( ১৯১৭),  The Butterfly’s Evil Spell, Mariana Pineda, The Love of Don Perlimplín and Belisa in the Garden, Blood Wedding প্রভৃতি৷ এছাড়া বেশ কিছু ছোটো নাটক,  পেন্টিং এবং অনুবাদকার্যও তিনি করেছিলেন৷ 

ফেদেরিকো গার্সিয়া লোরকার ১৯৩৬ সালের ১৮ আগস্ট মৃত্যু হয়৷ এই ক্ষণজন্মা কবি ও নাট্যকার বিশ্বসাহিত্যে নিজের স্থান রেখে গেছেন৷ স্পেনের গৃহযুদ্ধের সময় জেনারেল ফ্র্যাঙ্কোর ফ্যাসিস্ট বাহিনীর শিকার হন এই কবি৷ পাহাড়ের সারির আড়ালে চিরতরে হারিয়ে যান ফেদেরিকো গার্সিয়া লোরকা৷ তিনি স্পেনীয় গৃহযুদ্ধের শুরুতে জাতীয়তাবাদী বাহিনী দ্বারা নিহত হয়েছেন বলে বিশ্বাস করা হয়। মৃত্যুর পর থেকে আজ অবধি তাঁর দেহাবশেষ খুঁজে পাওয়া যায়নি।  

Click to comment

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

To Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন।