খেলা

গ্যারি কাসপারভ

সোভিয়েত রাশিয়ার একজন অন্যতম শ্রেষ্ঠ দাবাড়ু হলেন গ্যারি কাসপারভ। তিনি একাধারে গ্র্যান্ডমাষ্টার, দাবায় বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ও লেখক। ১৯৮৬ সাল থেকে ২০০৫ পর্যন্ত ২২৮ মাসের মধ্যে তিনি ২২৫ মাস বিশ্বে ১ নম্বর স্থানটি ধরে রেখেছিলেন। ১৯৯৯ সালে তিনি ২৮৫১ এলো রেটিং( Elo rating) অর্জন করেন যেটি ২০১৩ সাল অবধি বিশ্বে সর্বকালের সর্বোচ্চ রেটিং ছিল। বর্তমানে এই রেটিংটি তাঁরই ছাত্র ম্যাগনাস কার্লসেনের দখলে।

গ্যারি কাসপারভ ১৯৬৩ সালের ১৩ এপ্রিল রাশিয়ার আজারবাইজানের বাকু শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম ছিল কিম মইসেভিচ ওয়েনস্টাইন। মায়ের নাম ক্লারা কাস্পারোভা শগেনোভানা।গ্যারি’র যখন সাত বছর বয়স তাঁর বাবা লিউকিমিয়ায় মারা যান।

তাঁর যখন দশ বছর বয়স তখন থেকেই তিনি প্রথম দাবা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন।মাত্র তেরো বছর বয়সে ১৯৭৬ সালে অনুষ্ঠিত ইউএসএসআর(USSR) যুব চ্যাম্পিয়নশিপে তিনি ৯ পয়েন্টের মধ্যে ৭ স্কোর করেন। পরের বছর এই একই প্রতিযোগিতায় তাঁর স্কোর হয় ৯ পয়েন্টের মধ্যে ৮.৫। ১৯৭৮ সালে সোকোলস্কি মেমোরিয়াল টুর্নামেন্টে তিনি ‘চেস মাষ্টার’ খেতাব অর্জন করেন।গ্যারি’র আগে এত কম বয়সে কেউ ‘চেস মাষ্টার’ খেতাব অর্জন করেননি। তিনি ছিলেন কনিষ্ঠতম অংশগ্রহণকারী। এই টুর্নামেন্ট থেকেই তিনি দাবাকেই নিজের পেশা হিসেবে বেছে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

১৯৮০ সালে ইউএসএসআর দলের অংশ হিসেবে তিনি সুইডেনের স্কারাতে ইউরোপীয় দল চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিয়েছিলেন ।তাঁর পাঁচটি জয় সোভিয়েত দলের ইউরোপীয় স্বর্ণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল।তিনি ছিলেন বিশ্বের কনিষ্ঠ গ্র্যান্ডমাস্টার।

১৯৮৪ সালে দাবা বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে গ্যারি কাসপারভ এবং বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আনাতোলি কারপভের মধ্যে প্রথমবার লড়াই হয়। এই লড়াইটি অমীমাংসিত থাকে। ১৯৮৫ সালের দাবা বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে গ্যারি কাসপারভ আবার আনাতোলি কারপভের মুখোমুখি হন এবং শেষ অবধি তিনি বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হন। ১৯৯৫ সালে নিউ ইয়র্কে ভারতের গ্র্যান্ডমাস্টার বিশ্বনাথন আনন্দকে হারিয়ে গ্যারি তাঁর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের খেতাব অক্ষুন্ন রাখেন। গ্যারি কাসপারভ বছরের সেরা দাবা খেলোয়াড় হিসেবে ১১ বার দাবা অস্কারে ভূষিত হন তিনি অসংখ্য টুর্নামেন্ট এবং ম্যাচের বিজয়ী হন।

১০ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৬ সালে ফিলাডেলফিয়ার পেনসিলভানিয়ায় শুরু হওয়া যন্ত্র ও মানুষের মধ্যে বিশ্বের ইতিহাসে প্রথম অনুষ্ঠিত দাবা চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হয়। আইবিএমের(IBM)এর তৈরি ‘ডিপ ব্লু’ কম্পিউটার প্রোগ্রামের(Computer Progamme) বিরুদ্ধে প্রথমবারের মতো ওই সময় বিশ্বচ্যাম্পিয়ান ও শীর্ষস্থানীয় এলো রেটিংধারী দাবাড়ু হিসেবে গ্যারি কাসপারভ প্রতিযোগিতায় নামেন। প্রথম খেলায় গ্যারি কাসপারভ হেরে যান।পরবর্তী খেলাতে তিনি জয়ী হন এবং বাকি দুটিতে ম্যাচ ড্র করেন। এটি নিঃসন্দেহে দাবা খেলার দুনিয়া একটি আলোড়ন সৃষ্টিকারী ঘটনা । এই ম্যাচে তাঁর জয় নিঃসন্দেহে যন্ত্রচালিত দাবা কম্পিউটারের উপর মানুষের প্রভাব প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়।পরবর্তীকালে “ডিপ ব্লু’ কে আরো উন্নততর করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং এর নাম দেওয়া হয় ‘ডিপার ব্লু’। ২০০০ সালে প্রথম ভ্লাদিমির ক্রামনিক এর কাছে বিশ্বসেরার মুকুটও হারান কাসপারভ।

কাসপারভ কুড়ি বছর বয়সে তাঁর আত্মজীবনী ‘আনলিমিটেড চ্যালেঞ্জ'(Unlimited Challenge) লিখেছিলেন। তিনি বেশ কয়েকটি দাবা সংস্থার উদ্যোক্তা ও স্রষ্টা ছিলেন।

‘কাসপারভ ক্লাব’ নামে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেন কাসপারভ যেটি ইন্টারনেটে দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।

২০০৫ সালে আচমকাই এই কাসপারভ কাসপারভ অবসর গ্রহণ করেন। শুরু হয় তার জীবনের অন্য একটি পর্ব- রাজনীতি।অবসর নিলেও পুরোপুরি কখনোই তিনি দাবা ছাড়েননি। ছোটখাটো প্রতিযোগিতায় বরাবরই তাঁকে খেলতে দেখা গেছে। লিখেছেন একাধিক বই ।আবার মানবাধিকারকর্মীর ভূমিকায়ও নেমেছেন। কাসপারভ রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিরুদ্ধে সক্রিয় রাজনীতিতে অংশ নেন।ফলত পুতিন সরকার তাঁর ওয়েবসাইট ব্লক করে দেয়। ২০১৩ থেকে নিউইয়র্কে বসবাস করতে থাকেন কাসপারভ । ২০১৪ সালে ক্রোয়েশিয়ার নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন তিনি। ।।২০০৫-এ আন্তর্জাতিক দাবা থেকে অবসর গ্রহণের প্রায় একযুগ পর ২০১৭ সালে কাসপারভ আবার দাবার দুনিয়ায় অবসর ভেঙ্গে ফিরে আসেন। আমেরিকার মিসৌরিতে সেন্ট লুই রাপিড এন্ড ব্লিৎজ (saint louis rapid and blitz) প্রতিযোগিতায়  অংশগ্রহনের জন্য।

Click to comment

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

To Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন।

অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর - জন্ম সার্ধ শতবর্ষ



তাঁর সম্বন্ধে জানতে এখানে ক্লিক করুন

বাংলাভাষায় তথ্যের চর্চা ও তার প্রসারের জন্য আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন