ইতিহাস

ভি. এস. শ্রীনিবাস শাস্ত্রী

ভি এস শ্রীনিবাস শাস্ত্রী তামিলনাড়ুর কুম্বাকনাম- এ জন্মগ্রহণ করেন এক দরিদ্র পুরোহিতের পরিবারে। ছাত্র অবস্থায় ইংরেজি গ্রামারের বাইবেল J.C.Nesfield- এর “ইংলিশ গ্রামার” নামক বইটিতে বেশ কয়েকটি ভুল ধরেছিলেন। এমন কি উইনস্টন চার্চিল কেও রেয়াত করেননি ভুল উচ্চারন দেখে। বাগ্মীতাকে এক অবিশ্বাস্য উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন।

লর্ড বেলফার (প্রাক্তন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী) শাস্ত্রীর একটি বক্তৃতা শুনে মন্তব্য করেন, “শাস্ত্রীর ইংরেজি ভাষণ না শুনলে আমি কল্পনাও করতে পারতাম না ইংরেজীর মাধুর্য কোন উচ্চতায় উঠতে পারে।”

থমাস স্মার্ট ওনাকে আখ্যা দেন, Silver-Tongued Orator of the British Empire। ইংরেজীতে ওনার পাণ্ডিত্য এমনই উচ্চতায় পৌঁছে যায় যে রাজা পঞ্চম জর্জ শাস্ত্রীকে Companion of Honour উপাধি দেন। ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ সম্মান Freedom of the city of London-ও অধরা থাকেনি তাঁর। শাস্ত্রী মশাই গান্ধীজীর ‘হরিজন’ পত্রিকার ২৭টি ব্যকরণগত ত্রুটিই ধরিয়ে দেননি শুধু, ওনার নাম যাতে কোনভাবেই প্রকাশ না পায় এই চুক্তিতে গান্ধীজীর আত্মজীবনী My experiments with truth এরও কিছু ত্রুটি উনি ধরিয়ে দেন। লেডি লিটন ওনাকে বলতেন An artist in words। শাস্ত্রীর বক্তৃতা শুনবেন বলে শুধু লয়েড জর্জ (প্রাক্তন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী)মাঝপথে জরুরি মিটিং ছেড়ে বেরিয়ে আসেন। অপরিমেয় পাণ্ডিত্যের অধিকারী শ্রীনিবাস শাস্ত্রী, আমাদের অনেকের কাছেই কিন্তু বিস্মৃতই থেকে গেলেন আজও।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

To Top

বাংলা ভাষায় তথ্যের চর্চাকে ছড়িয়ে দিতে পোস্টটি লাইক ও শেয়ার করুন। 

  

error: Content is protected !!