ধর্ম

শিবরাত্রি ব্রত

ফাল্গুন মাসের কৃষ্ণপক্ষের চতুর্দশ তিথিতে যে ভয়ানক অন্ধকার রাত্রি হয়, সেই রাতেই শিবরাত্রি পালন করা হয়। সব ব্রতের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ হল  শিবরাত্রি ব্রত। ব্রতের আগের দিন ভক্তগণ নিরামিষ খায়। ব্রতের দিন তারা উপবাসী থাকে। তারপর রাত্রিবেলা চার প্রহরে চারবার শিবলিঙ্গের পূজা করে আর ‘ওঁ নমঃ শিবায়’ এই মহামন্ত্র জপ করে। বলা হয় ঐ রাত্রে যে ব্যক্তি উপবাস করে শিবের পুজো করে, তার ওপর শিব খুব খুশি হয়। পুরাণ অনুযায়ী শিব নিজেই পার্বতীকে বলেছিলেন এই কথা।

বাংলায় প্রচলিত ধারণা অনুযায়ী সাধারণত মেয়েরা ভাল স্বামী পাবার আশায় শিবরাত্রি ব্রত পালন করে। কিন্তু শিবরাত্রি শুধুই মেয়েদের জন্য নয়। ছেলেরাও শিবরাত্রি করতে পারে এবং করেও তাছাড়া প্রথম শিবরাত্রি তো করেছিল এক জন ছেলেই! শিব নিজেই স্বয়ং সে গল্পও শুনিয়েছেন। শিবরাত্রি নিয়ে প্রচলিত কাহিনী এখানে জেনে নেওয়া যাক।

অনেকদিন আগে বারাণসীতে এক নিষ্ঠুর প্রকৃতির ব্যাধ ছিল। দিন রাত বনে সে জীবহত্যা করে বেড়াত বলে তার অনেক পাপ জমা হয়েছিল। একদিন একইভাবে শিকারের সন্ধানে বেড়িয়ে সে গভীর বনে ঢুকে পড়ে। সারাদিন ধরে অনেক চেষ্টা করেও সে কোনো শিকার করতে না পেরে যখন বাড়ি ফেরার পথ ধরে, তখন অনেক রাত হয়ে গেছিল। সেই রাত ছিল ফাল্গুন মাসের কৃষ্ণপক্ষের চতুর্দশীর রাত। সারাদিন ধরে কিছু খেতে না পেয়ে এমনিতেই তার অবস্থা কাহিল হয়ে গেছিল, তারপর এত রাতে কোথায় যাবে, আবার বাড়ি গেলেও তো ফাঁকা হাতেই যেতে হবে, কারও জন্য কোনো খাবারও নিয়ে যেতে পারবে না, এইসব ভেবে সে আর বাড়ি ফিরবে না ঠিক করল। হিংস্র পশুদের থেকে বাঁচতে  কাছে একটা গাছ দেখে তাতে উঠে পড়ল।  সেই গাছটা ছিল বেলগাছ। গাছের নীচে বহুকালের পুরনো একটা শিবলিঙ্গ ছিল। শিকারের পেছনে ছুটতে ছুটতে তার কিছু খাওয়া হয়নি, সারারাত সে ঐখানেই জেগে থাকল। শিবরাত্রি পালনের শর্তগুলো সে না জেনেই পালন করতে থাকল। এরপর সেই শিবলিঙ্গের মাথার ওপর ব্যাধের চোখের জল আর শুকনো বেলপাতা এসে পড়ল। এতে ব্যাধের অজান্তেই তার শিবরাত্রি পালন হল।

সকালে বাড়ি ফিরে সে তার বউকে রান্না করতে বলে নদীতে স্নান করতে গেল। ফেরার পথে রাস্তায় একজনের সাথে দেখা হল। সে ব্যাধের কাছে কিছু খেতে চাইল, তখন ব্যাধ তাকে নিয়ে বাড়িতে এল এবং তাকে পেট ভরে খাইয়ে নিজেও খেল। এতে শিবচতুর্দশী ব্রতর পূর্ণফল সে পেল।

কিছুদিন পর যখন ব্যাধের মৃত্যু এসে উপস্থিত হল, তখন যমদূতেরা তাকে নিতে এল। কিন্তু শিবের পাঠানো দূতেদের হাতে পরাজিত হয়ে তারা শিবের দূতের পেছনে পেছনে কৈলাসে এসে উপস্থিত হল। কৈলাসের মুখে পাহারায় থাকা নন্দী তাদের বলল যে ব্যাধ মহাপাপী হলেও শিবচতুর্দশী ব্রতর পালনে তার পাপ ধুয়ে গেছে। সেই শুনে যমদূতেরা যমলোকে ফিরে গেল।

তারা যমকে সব কথা খুলে বলল। তারা বলল, “আজ থেকে এইসব মহাপাপীদের ওপর আপনার অধিকার যে রইল না। এটা কেমন হল?”
তখন যম তাদের বুঝিয়ে বলল, “যে লোক শিব কিংবা বিষ্ণুভক্ত, যে লোক শিব চতুর্দশীর ব্রত করে বা বারানসীতে মরে, তার ওপর আমাদের অধিকার থাকে না।”

বাংলা তথা পুরো ভারতেই এই দিনটি মহাসমারোহে পালিত হয়। যদিও আগেই উল্লেখ করা হয়েছে এই ব্রত নারী পুরুষ উভয়দের জন্যই, তবুও প্রচলিত বিশ্বাস অনুযায়ী এই ব্রত পালন করলে নাকি নারীর সব কামনা পূর্ণ হয়ে যায় । প্রাচীন যে সমাজে এই ব্রতের প্রচলন হয়, সেখানে মেয়েদের কামনা বলতে, তাদের চাওয়া বলতে সন্তান, স্বামী আর পরিবার।  কুমারী, সধবা বা বিধবা যাই হোক না কেন পরিবারের বাইরে অন্য কিছু চাইবার মতো সংস্কার ছিল না। আজ তারা আধুনিক হয়েছে, সংস্কার বদলে এই ব্রত  বাৎসরিক উৎসবের মত রয়ে গেছে। কিন্তু এর পালনে কোনো ভাটা পড়েনি। যদিও আগের থেকে অনেককিছুই পরিবর্তন হয়ে গেছে। যেমন সত্তরের দশকে বাংলায় শিবরাত্রি পালনের সাথে সিনেমাহলের একটা আত্মীয়তা ছিল। শিবরাত্রির দিন জেগে থাকতে দর্শকের ভিড় হত সিনেমায়। সেইসময় চড়া দামে সারারাত চলত সিনেমা। অন্তত তিনটে শো চালাত হল মালিকেরা। শিব-ভক্তরা ব্রত পালনের জন্য রাত জাগত হলে বসে। এখন সে চল না থাকলেও শিবরাত্রি হলে রাত জাগা বা ব্রত পালনের কোনো খামতি নেই।

সববাংলায় পড়ে ভালো লাগছে? এখানে ক্লিক করে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ভিডিও চ্যানেলটিওবাঙালি পাঠকের কাছে আপনার বিজ্ঞাপন পৌঁছে দিতে যোগাযোগ করুন – contact@sobbanglay.com এ।


তথ্যসূত্র


  1. সংক্ষিপ্ত শিবপুরাণ, গীতাপ্রেস, গোরক্ষপুর, কোটিরুদ্রসংহিতা, পৃষ্ঠা ৩৯৩ - ৪০১
  2. মেয়েদের ব্রতকথা- লেখকঃ আশুতোষ মজুমদার, প্রকাশকঃ অরুণ মজুমদার, দেব সাহিত্য কুটির, পৃষ্ঠা ১৮২
  3. মেয়েদের ব্রতকথা- লেখকঃ গোপালচন্দ্র ভট্টাচার্য সম্পাদিত ও রমা দেবী কর্তৃক সংশোধিত, প্রকাশকঃ নির্মল কুমার সাহা, দেব সাহিত্য কুটির, পৃষ্ঠা ১৭৩
  4. https://www.anandabazar.com/editorial/শিবের-মতো-বর-চাইতে-শেখানো-হল-কেন
  5. anandabazar.com/movie-in-shivratri
  6. https://ebela.in/why-is-sivaratri-a-women-s-festival-only-in-bengal
  7. https://bn.wikipedia.org/wiki/shibratri

 
২ Comments

২ Comments

  1. Pingback: কালীঘাট মন্দির | সববাংলায়

  2. Pingback: বিহারীনাথ ভ্রমণ | সববাংলায়

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

To Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন।