সব

৫ই সেপ্টেম্বর ।। শিক্ষক দিবস

৫ই সেপ্টেম্বর সারা ভারত জুড়ে মহা সমারোহে  স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে পালিত হয় শিক্ষক দিবস(teachers day)। ১৯৬২ সাল থেকে প্রতি বছর ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি, উপরাষ্ট্রপতি , সোভিয়েত ইউনিয়নে ভারতের প্রাক্তন দূত , এবং একাধারে শিক্ষক ও দার্শনিক ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণনের জন্মদিন ৫ই সেপ্টেম্বর দিনটি ভারতে শিক্ষক দিবস হিসেবে পালন হয়ে আসছে।

ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণ (৫ই সেপ্টেম্বর, ১৮৮৮ তে তামিলনাডুর তিরুট্টানিতে এক দরিদ্র ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি স্বাধীন ভারতের  প্রথম উপরাষ্ট্রপতি (১৯৫২-১৯৬২) এবং দ্বিতীয় রাষ্ট্রপতি (১৯৬২-৬৭) ছিলেন। বয়স যখন মাত্র কুড়ি, প্রথম গবেষণা পত্র প্রকাশ করেন বেদান্ত দর্শনের ওপর। মাদ্রাজ প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে তাঁর অধ্যাপনা জীবন শুরু ।এরপর একাধারে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের 'King  George V Chair of Mental and Moral Science', অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের  Spalding Professor of Eastern Religion and Ethics ও মহীশুর বিশ্ববিদ্যালয়েও তিনি  অধ্যাপনা করেন। অন্ধ্র বিশ্ববিদ্যালয় এবং বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের ভূমিকাও পালন করেছেন তিনি। ১৯৫২-য় উপরাষ্ট্রপতি হন রাধাকৃষ্ণন। তার আগে, ১৯৪৬-এ ইউনেস্কোর দূত হয়েছিলেন এবং পরবর্তীকালে সোভিয়েত ইউনিয়নে ভারতের দূতও ছিলেন তিনি। ১৯৬২-তে ভারতের রাষ্ট্রপতি হন রাধাকৃষ্ণন।নোবেলজয়ী ব্রিটিশ দার্শনিক, বারট্রান্ড রাসেল একবার বলেছিলেন, “ডঃ রাধাকৃষ্ণন ভারতের রাষ্ট্রপতি হওয়া মানে দর্শন বিষয়টার কাছে একটা আলাদা সম্মানের। আমিও নিজে দার্শনিক, তাই আমিও গর্বিত।” ১৯৩১- এ নাইটহুড , ১৯৫৪-এ ভারতরত্ন, এবং ১৯৬৩তে ব্রিটিশ রয়্যাল অব মেরিট-এ সাম্মানিক সদস্যপদ পান।১৯৭৫-এর ১৭ এপ্রিল এই মহান শিক্ষক ইহলোক ত্যাগ করেন।

ভারতে শিক্ষক দিবসের উৎপত্তি মূলত  ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণ রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর ওনার গুণমুগ্ধ ছাত্রছাত্রীদের তার জন্মদিন পালন করতে চাওয়াকে কেন্দ্র করেই। কিন্তু  ডঃ রাধাকৃষ্ণণ নিজের জন্মদিন পালনের পরিবর্তে তাঁর ছাত্রছাত্রীদের বলেন তাঁর জন্মদিনকে যদি একান্তই স্মরণীয় করে রাখতে হয়  তবে এ দেশের সমস্ত শিক্ষক-শিক্ষিকার অবদান মাথায় রেখে তাঁদের স্মরণে দিনটি পালন করলে তিনি বেশী খুশি হবেন। সেই থেকেই প্রতি বছর ৫ই সেপ্টেম্বর শিক্ষক দিবস (teachers day) পালন হয়ে আসছে সারা দেশজুড়ে। এ প্রসঙ্গে উল্লেখযোগ্য সারা বিশ্বে কিন্তু শিক্ষক দিবস পালন হয় ঠিক এক মাস পর- অর্থাৎ ৫ই অক্টোবর। সব মিলিয়ে ১৯টি দেশে অক্টোবর মাসের ৫ তারিখ ‘টিচার্স ডে’ পালিত হয়। দেশগুলি হল—কানাডা, জার্মানি, বুলগেরিয়া, আর্জেবাইজান, ইস্তোনিয়া, লিথোনিয়া, ম্যাকেডোনিয়া, মলদ্বীপ, নেদারল্যান্ড, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, কুয়েত, কাতার, রাশিয়া, রোমানিয়া, সার্বিয়া, ইংল্যান্ড, মাউরেটিয়াস, মলদোভা। অন্যদিকে আবার বিশ্বের অন্য ১১টি দেশে ২৮ ফেব্রুয়ারি দিনটিতে বিশ্ব শিক্ষক দিবস পালিত হয়। দেশগুলি হল- মরক্কো, আলজেরিয়া, টিউনেশিয়া, লিবিয়া, ইজিপ্ট, জর্ডন, সৌদিআরব, ইয়েমেন, বাহরেইন, ইউ এ ই, ওমান। ১৯৯৪ সালের ৫ অক্টোবর থেকে ইউনেস্কো  ‘বিশ্ব শিক্ষক দিবস’ দিনটিকে মান্যতা দেয়। নেপালে অবশ্য শিক্ষক দিবস পালন হয়- গুরুপূর্ণিমার দিন।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

To Top

 পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে সকলকে পড়ার সুযোগ করে দিন।  

error: Content is protected !!