ভারতের স্বাধীনতা দিবস

ভারত

” ভারত হল মানবজাতির আঁতুড়ঘর, মানুষের মুখের ভাষার জন্মভূমি, ইতিহাসের জন্মদাত্রী স্বরূপ, কিংবদন্তির মাতামহ এবং ঐতিহ্যের প্রমাতামহী  স্বরূপা।” বিখ্যাত আমেরিকান লেখক মার্ক টোয়েনের ভারত সম্পর্কে এই উক্তিই বলে দেয় ভারতের অবদান পৃথিবীর ইতিহাসে।

ভারত  নামটির উৎপত্তি প্রসঙ্গে বলা হয়  চন্দ্রবংশীয় পৌরাণিক রাজা ভরতের নাম থেকে এই ভারত নামটির উৎপত্তি।তাহলে ভারতবর্ষ কেন বলা হয়? এ কথা বলা হয়ে থাকে ‘ভারতবর্ষ’-এই বর্ষ  শব্দের অর্থ- অঞ্চল।এই ভারত নামক অঞ্চলটি রাজা ভরতকে দান করা হয়েছিল বলে এর নাম ভারতবর্ষ । আবার ইংরেজি ইন্ডিয়া  (India) শব্দটির উৎপত্তি প্রসঙ্গে মনে করা হয় সিন্ধু নদের ফার্সি নাম হিন্দু থেকে এর উৎপত্তি।

দক্ষিণ এশিয়ায় অবস্থিত ভারতবর্ষের  পশ্চিম সীমান্তে পাকিস্তানউত্তর-পূর্বে চীন, নেপাল, ও ভূটান এবং পূর্বে বাংলাদেশ, মায়ানমার ও মালয়েশিয়া অবস্থিত। এছাড়া ভারত মহাসাগরে অবস্থিত শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ ও ইন্দোনেশিয়া ভারতের নিকটবর্তী কয়েকটি দ্বীপরাষ্ট্র। দক্ষিণে ভারত মহাসাগর, পশ্চিমে আরব সাগর ও পূর্বে বঙ্গোপসাগর দ্বারা বেষ্টিত ভারতের উপকূলরেখার সম্মিলিত দৈর্ঘ্য ৭,৫১৭ কিলোমিটার (৪,৬৭১ মাইল)।

ভারতের রাজধানীর নাম- নতুন দিল্লী।দিল্লী ইতিহাসের দিক থেকে অত্যন্ত ঐতিহ্যপূর্ণ একটি শহর।   আয়তনের বিচারে ভারত বিশ্বের ৭ তম বৃহত্তম দেশ এবং ২০১৭সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী জনসংখ্যার বিচারে ভারত বিশ্বে ২য় জনবহুল দেশ।ভারতের মুদ্রার নাম – ভারতীয় টাকা(INR)।

ভারত ম্যাপ

ভারতের সরকারী কাজকর্মের জন্য স্বীকৃত ভাষা দুটি- হিন্দি এবং ইংরেজি।তবে রাজ্যগুলি তাদের সরকারী কাজ সাধারণত সেই রাজ্যের প্রধান ভাষা ও ইংরেজিতে করে। ভারতের কোন সরকারী স্বীকৃত ধর্ম নেই। দেশের ৭৯.৮% মানুষ হিন্দু ধর্মাবলম্বী। ১৪.২% মানুষ মুসলমান, ২.৩% খ্রিষ্টান, ১.৭% শিখ, ০.৭% বৌদ্ধ, ০.৪% জৈন এবং ০.৯% মানুষ অন্যান্য ধর্মাবলম্বী।হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন ও শিখ— এই চার ধর্মের উৎপত্তি ভারত থেকেই হয়েছে। এক হাজার খ্রিস্টাব্দে প্রথম জরাথুষ্ট্রীয় ধর্ম , ইহুদি ধর্ম, খ্রিষ্টধর্ম ও ইসলামের এ দেশে গোড়াপত্তন হয়।

১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দের ১৫ আগস্ট ভারত ব্রিটিশ শাসনের হাত থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীন দেশ হিসেবে জন্মগ্রহণ করে বিশ্ব মানচিত্রে। ভারতের শাসন ব্যবস্থা গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র।বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র শাসনব্যবস্থার দেশ হল ভারত।  দেশের রাষ্ট্রপতি নিয়মতান্ত্রিক শাসক কিন্তু প্রকৃত শাসক প্রধানমন্ত্রী।  সামরিক শক্তির দিক থেকে ভারত বিশ্বের তৃতীয় শক্তিশালী দেশ। কেবল সামরিক শক্তি নয় ভারত বিশ্বের ষষ্ঠ পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্র।

পৃথিবীর সেরা চা উৎপাদন ভারতেই হয়।কেবল চা নয় ভারতের বিরিয়ানি, কাবাব, ধোসা, রসগোল্লা জগদ্বিখ্যাত।ভারতীয়দের প্রধান খাদ্য মূলত- ভাত, রুটি এবং বিভিন্ন ধরণের ডাল।

ধ্রুপদী সঙ্গীতের উৎসক্ষেত্র- এই ভারত। ভারতের জাতীয় পশু- বাংলার বাঘ, ভারতের জাতীয় ঐতিহ্যবান পশু- হাতি, জাতীয় পাখি- ময়ূর, জাতীয় সরীসৃপ- কিং কোবরা, এবং জাতীয় জলচর প্রাণী- গাঙ্গেয় ডলফিন।বৈচিত্র্যের  মধ্যে ঐক্য  ভারতীয় সংস্কৃতির প্রধান বৈশিষ্ট্য। ভারতে মোট ৩৭ টি ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট আছে। ভারতের  যে জায়গাগুলো না দেখলে ভারত ভ্রমণ অপূর্ণ থেকে যাবে- তার মধ্যে একদম প্রথমেই রয়েছে- তাজমহল। বিশ্বের আধুনিক সপ্তম আশ্চর্যের মধ্যে অন্যতম আশ্চর্য উত্তর ভারতের আগ্রায় অবস্থিত এই মুঘল স্থাপত্য। এছাড়াও ভারতের উল্লেখযোগ্য ভ্রমণ স্থানের মধ্যে পড়ে- ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল, ভীমভেটকা গুহা, অজন্তা ও ঈলোরা গুহা, খাজুরাহো,পুরীর  জগন্নাথ মন্দির, রাজস্থানের রাজপুত প্রাসাদ ইত্যাদি।

29 comments

  1. পিংব্যাকঃ সতীপীঠ | সববাংলায়

আপনার মতামত জানান